মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

মুক্তিযুদ্ধে আনোয়ারা

 

(গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা)

ক্রঃ নং-

বধ্যভূমি, স্থান ও তারিখ

শহীদের সংখ্যা

সম্মুখ সমর, স্থান ও তারিখ

প্রশিক্ষণ শিবির

শহীদদের সংখ্যা

বি.এস খতিয়ান ও দাগ/জমির পরিমান

সংক্ষিপ্ত বিবরণ

১।

 

 

ফজলুর কাদের চৌ: সাথে তার পরিবার ও কয়েকজন পাক-বাহিনী সহ গ্রেফতার।

 

মৌজা-রাঙ্গাদিয়া

মালিকানা-সি.ইউ.এফ.এল

বি.এস দাগ নং-১১৫৭

ফকা চৌধুরী পরিবার নিয়ে বার্মা পালিয়ে যাওয়ার সময় ১৫নং ঘাটে (বর্তমানে সিইউএফএল ঘাটে) বোট আটকিয়ে গেলে লোক মারফত মুক্তিযোদ্ধারা সংবাদ পান এবং ৫০/৬০ জন মুক্তিযোদ্ধা উক্ত স্থানে গিয়ে পরিবারসহ ফকা চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করেন। তারিখ: ১৪/১২/১৯৭১, বেলা- ১২.০০ টা

২।

 

বরুমছড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গন।

তাং-সেপ্টে/অক্টো/৭১

বেলা-২ ঘটিকা।

 

 

মৌজা-বরুমছড়া

মালিকানা-প্রাথমিক বিদ্যালয়

বি.এস খতিয়ান নং-৪৮২

বি.এস দাগ নং-২৪১৯

জমির পরিমান-০.০৩ শতক।

রাজাকার আলবদর বাহিনী শীলপাড়া ও শরীয়ত উলা মাষ্টারের বাড়ী পুড়াইতে শুরু করলে বারখাইন, তৈলারদ্বীপ থেকে ২০-২৫জন মুক্তিযোদ্ধা এসে রাজাকারদের উপর আক্রমন চালালে রাজাকারেরাও পাল্টা আক্রমন করে পরে রাজাকারেরা নলদিয়া গ্রাম হয়ে বরুমছড়া ত্যাগ করে।

৩।

 

রুস্তমহাট/বটতলী

তাং-২৯/১১/৭১

বেলা-২ ঘটিকা।

 

 

মৌজা-বটতলী, মালিকানা-সরকারী খাস,

দাগ নং-২০৪৬, ৪১৬৫

জমির পরিমান-১০ শতক।

প্রায় ১৭০ জন রাজাকার বটতলী রস্তমহাটে আসলে মুক্তিযোদ্ধারা চারপাশ থেকে আক্রমন চালালে রাজাকারেরাও আক্রমন চালায়। এখানে একজন রাজাকার মরা যায় ও রাজাকার কমান্ডার আহমদ ছফাসহ অনেক রাজাকারকে গ্রেফতার করা হয় এবং পরে ফাইয়ারিং স্কয়ার্ডে দেওয়া হয়। অনেক রাজাকার পালিয়ে যায়।

৪।

 

সুরমাপুকুর পাড়

সেপ্টে/অক্টো/৭১

সকাল-৭ ঘটিকা।

শহীদ-০১ জন।

 

 

মৌজা-বোয়ালিয়া

মালিকানা-ব্যক্তি মালিকানা।

বি.এস খতিয়ান নং-৬৪২

বি.এস দাগ নং-২৬৬৯।

যুদ্ধকালীন গ্রুপ নং- ৩২,৩৩,৩৪,৩৫,৩৬ এর মুক্তিযোদ্ধারা সাথে রাজাকার, আলবদর, আলশামস এর সম্মুখ যুদ্ধ। উক্ত যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধা রস্তম আলী শহীদ হয় এবং উক্ত স্থানে দাফন করা হয়।

৫।

 

আনোয়ারা থানা

তাং-২৩/০৯/৭১

ভোর-৫ ঘটিকা।

 

 

মৌজা-আনোয়ারা, মালিকানা-ব্যক্তি মালিকানা ও থানার দখলে। বি.এস খতিয়ান-৬, দাগ-১৩০৩, জমির পরিমান-১০ শতক।

যুদ্ধকালীন গ্রুপ নং- ৩২,৩৩,৩৪,৩৫,৩৬ এর মুক্তিযোদ্ধারা পূর্ব পরিকল্পনা নিয়া শত্রুবাহিনীকে চারপাশ থেকে আক্রমন করে। সম্মুখ যুদ্ধে বেশ রাজাকার ও তাদের দোসর নিহত হয় এবং ১৫/২০জনকে গ্রেফতার করে ফাইয়ারিং স্কয়াডে দেওয়া হয়।

৬।

 

আতাউর রহমান খান কায়সার সাবেক এম.সি.এ সাহেবের বাড়ী, ১৭/০৪/৭১ সকাল ১১ টায় পাক হানাদার বাহিনী গান পাউডার দিয়ে বাড়ী পুড়িয়ে দেয়া হয়।

 

 

মৌজা-তৈলার দ্বীপ

মালিকানা-ব্যক্তি মালিকানা।

বি.এস খতিয়ান নং-১১৮, ১১৯, ১২০।

দাগ নং-৯৫৬৬, ৯১৫১, ৯১৫৬, ৯১৫৭, জমির পরিমান-১০ শতক।

পাকহানাদার বাহিনী গান পাউডার ছিটিয়ে আগুন দিয়ে বাড়ী পোড়াইয়া দেওয়া হয়।

৭।

 

বারখাইন সঙ্খ নদীর পাড় ভাঙ্গারমুখ, ১৯৭১ সালের নভেম্বর মাসের শেষ ভাগে।

 

 

মৌজা-বারখাইন।

মালিকানা-সরকারী খাস জায়গা।

বি.এস খতিয়ান নং-১০০০৪

বি.এস দাগ নং-৯১১৬, জমির পরিমান-১০ শতক।

পাকহানাদর বাহিনী ও রাজাকারদের সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মুখ যুদ্ধ হয়।

৮।

জয়কালী বাজার পশ্চিম পার্শ্বে ভরা দিঘীর দক্ষিণ পাড়। তাং-০৪/১০/৭১

বেলা-১১ ঘটিকা।

শহীদ-০৭ জন।

 

 

 

মৌজা-আনোয়ারা।

মালিকানা-ব্যক্তিমালিকানা।

বি.এস খতিয়ান নং-১১২০

বি.এস দাগ নং-২৪২৪

জমির পরিমান-০.০৪ একর।

জয়কালী বাজার এলাকাটা বিশেষ করে হিন্দু অধ্যুষিত এলাকা হয়। একদিন পাকবাহিনী ও তাদের দোসরেরা বাজারের দোকানদারদের ধরে এনে একই স্থানে গুলি করে হত্যা করে।

পূর্ব বারখাইন বিদ্যালয় প্রাঙ্গন।

তাং-সেপ্টে/অক্টো/৭১

সকাল-১১ ঘটিকা।

শহীদ-০৭ জন।

 

 

 

মৌজা-পূর্ব বারখাইন

মালিকানা-ব্যক্তি মালিকানা, বি.এস খতিয়ান নং-২৫৪, ১৩৯০, ৯২

বি.এস দাগ নং-৭০৪৪, ৭০৪৫

জমির পরিমান-০.১০ একর।

পাকবাহিনী ও রাজাকাররা এলাকার লোকজনকে ধরে এক জায়গায় জড়ো করে ব্রাসফায়ার ককরে হত্যা করে।

১০

পরৈকোড়া উচ্চ বিদ্যালয় পুকুর পাড়, বাথুয়াপাড়া, পূর্ব কন্যারা।

তাং-২১/০৫/৭১।

বেলা-২ ঘটিকা।

শহীদ-১৭৬ জন।

 

 

 

মৌজা-পরৈকোড়া।

মালিকানা-সরকারী খাস (স্কুলের দখলে)

বি.এস খতিয়ান নং-৫৮৪

বি.এস দাগ নং-২৩৪৫

জমির পরিমান-০.৪০ শতক।

পাকবাহিনী, রাজাকার, আলবদর বাহিনী স্থানীয় স্বাধীনতা বিরোধিদের সহযোগিতায় এলাকাবাসিদের ধরে এনে গুলি করে হত্যা করে।

১১

সুরমা পুকুর পাড় (শম্ভু পুকুর) বারশত।

তাং-০৭/০৭/৭১।

সকাল-১০ ঘটিকা,

শহীদ-৩০ জন।

 

 

 

মৌজা-বোয়ালিয়া

মালিকানা-ব্যক্তিমালিকানা

বি.এস খতিয়ান নং-৬৪২

বি.এস দাগ নং-২৬৬৯

জমির পরিমান-০.৯০ শতক।

উক্ত স্থানে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে রাজাকার, আলবদরদের আক্রমন, পাল্টা আক্রমন হওয়ায় রাগের বশবর্তী হয়ে পাকবাহিনীসহ রাজাকার আলবদর বাহিনী একত্রে আসিয়া উক্ত স্থানে লোকজনকে ধরে লাইন করে গুলি করে হত্যা করে।

১২

খিলপাড়া, ১নং ওয়ার্ড।

তাং-২১/০৪/৭১।

শহীদ-০৯ জন।

 

 

 

মৌজা-খিলপাড়া

বি.এস খতিয়ান নং-১৩৮

বি.এস দাগ নং-৪৯৪, ৪৯৫।

স্থানীয় দোসর ও পাকবাহিনী এলাকার লোকজনের উপর এলোপাতাড়ি গুলি করে হত্যা করে।

১৩

বন্দর বধ্যভূমি বর্তমানে কেইপিজেড কর্তৃক অধিগ্রহণকৃত।

 

 

 

মৌজা-বন্দর, মালিকানা-কেইপিজেড।

বি.এস খতিয়ান নং-১

বি.এস দাগ নং-১৫৫৬

জমির পরিমান-০.৫০ একর।

স্থানীয় রাজাকার, আলবদর, আলশামসদের সহযোগিতায় পাকবাহিনী এলেকার লোকজনকে উক্ত স্থানে জড়ো করে লাইন করে দাঁড় করে ব্রাস ফায়ার করে হত্যা করে। পরে কয়েকটি গর্ত করে ১০-১৫জনকে মাটি চাপা দেয়া হয়।

 

দক্ষিন বন্দর বধ্যভূমি

তাং-২০/০৫/৭১

সময়-সকাল ৭ টা হইতে ৯ টা।

শহীদের সংখ্যঅ -৩৪ জন।

 

 

 

মৌজা-বন্দর, মালিকানা-সরকারী খাস

বি.এস খতিয়ান নং-১

বি.এস দাগ নং-১৫৭৬

স্থানীয় দোসর ও পাকবাহিনী এলাকায় লোকজনকে জড়ো করে গুলি করে হত্যা করে।